আমাদের সম্পর্কে জানুন

EPP ময়মনসিংহ

ধারাবাহিক সফলতায় ময়মনসিংহে সবার উপরে

শিক্ষার্থী বন্ধুরা,
বিগত দশ বছর ধরে পশ্চাৎপদ বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চল হতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সহ দেশের সকল নামিদামী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের ভর্তির ক্ষেত্রে যে নীরব বিপ্লব ঘটেছে তার নেপথ্যে যে প্রতিষ্ঠানটি নিভৃতে নিরলস পরিশ্রম করে চলেছে সেটি হলো Exclusive Private Program Ltd. (EPP) | EPP গতানুগতিক ব্যবসা নির্ভর কোচিং ধারাকে সম্পূর্ণ রূপে বদলে দিয়ে পুরোপুরি সেবা নির্ভর এমন একটি কোচিং পদ্ধতি প্রবর্তন করেছে যা ছাত্র-ছাত্রীদের সফলতার মূল নিয়ামক।
বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের শিক্ষার্থীবৃন্দ আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রতিটি স্তরে, প্রতিটি শাখায় সর্বোচ্চ শিখরে বিচরণ করবে এটাই EPP-এর একমাত্র লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যে।পরিশেষে, আমাদের এই সুদীর্ঘ পথচলায় যারা সমালোচকের গুরুদায়িত্ব পালন করে আমাদেরকে সমৃদ্ধ হতে।

পাঠ্যবইকে ফাঁকি দিয়ে সাফল্যের স্বপ্ন দেখানো অবশ্যই ধোঁকাবাজি  EPP -র ধারাবাহিক সাফল্যের অন্তর্নিহিত শক্তি শুধুই পাঠ্যবই।

বিজ্ঞানী, প্রকৌশলী, নাকি চিকিৎসক??? কিসের স্বপ্নে তুমি বিভোর? তীব্র প্রতিযোগিতামূলক এই বন্ধুর পথ পেরিয়ে স্বপ্ন পূরণে তুমি কি অবিচল? সঠিক সিদ্ধান্তটি কি তুমি নিতে পেরেছ?
তোমরা, নিশ্চয়ই জানো, মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় Math থাকেনা, Physics প্রশ্ন হয় থিওরী নির্ভর এবং Chemistry অনেকটাই মুখস্থ বিদ্যা নির্ভর। ফলে মেডিকেল কোচিংরত শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি প্রস্তুতিতে অনেকটাই মেধাশূন্য হয়ে পড়ে।

অপরদিকে, ইঞ্জিনিয়ারিং কোচিং এ শুধুমাত্র লিখিত প্রশ্নের উপর জোড় থাকায় MCQ পার্টটা দুর্বল থেকে যায়। পাশাপাশি মূল বইয়ের সকল Topics এর উপর পর্যাপ্ত দক্ষতা না থাকলে তো কোচিং এর ক্লাসই হয়ে উঠবে দুর্বোদ্ধ, যেখানে চান্স পাওয়া তো অনেকটা সোনার হরিণ।
সীমিত আসন সংখ্যার কারণে বাংলাদেশের হাজার হাজার শিক্ষার্থী ঐতিহ্যগতভাবে ১ম বার মেডিকেল ও বুয়েট কোচিং করে চান্স না পেলে তারা ২য় বার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ গ্রহণ করত।ভর্তি পরীক্ষায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ২য় বার পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ আর থাকছে না। যদি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ২য় বারের সুযোগ না থাকে তবে শিক্ষার্থীরা যে যেই কোচিং-ই করুক না কেন সুযোগ কিন্তু শুধুমাত্র একবারই।

সুতরাং, সামাজিক চাপ অথবা বন্ধুদের প্ররোচনায় কোচিং না করে বরং সমসাময়িক বাস্তবতা, ব্যক্তিগত ইচ্ছা, যোগ্যতা ও সামর্থকে অবশ্যই প্রাধান্য দেয়া উচিত।

পরিশেষে, নিজেকে জান, সফলতা আসবেই।
বিশ্ববিদ্যালয় [শুধুমাত্র বিজ্ঞান বিভাগ]
আসন সংখ্যা ২৪,০০০
বুয়েট আসন সংখ্যা ১০৫০
মেডিকেল আসন সংখ্যা ৩৭৬৩
সঠিক সিদ্ধান্তই দিবে সাফল্যের নিশ্চয়তা

ভ র্তি ত থ্য:

কোর্স ফি :‘ক’ ইউনিট-১৭,৫০০/-

‘ঘ’ ইউনিট-১৩,৫০০/-

ভর্তি ফি : এককালীন পরিশোধযোগ্য

ব্যাচ সময় : সকাল ৭.০০ মিনিট/সকাল ৯.৩০ মিনিট/১২.৩০ মিনিট/বিকাল ৩.৩০ মিনিট

[সিট খালি থাকা সাপেক্ষে সুবিধাজনক সময়ের ব্যাচে ভর্তির সুযোগ গ্রহণ করা যাবে]

 

ধারাবাহিক সফলতায় ময়মনসিংহে সবার উপরে  EPP

  1. ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (১৪১ জন)
  2. জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (৪১ জন)
  3. রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (৪৭ জন)
  4. জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (৩১ জন)
  5. চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (৩৮ জন)
  6. শাহজালাল বিঃ ও প্রঃ বিশ্ববিদ্যালয় (৩৩ জন)
  7. বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় (১৪ জন)
  8. বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (৩১ জন)
  9. হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (২৯ জন)
  10. যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (১২ জন)
  11. পাবনা বিশ্ববিদ্যালয় (১৭ জন)
  12. বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (০৭ জন)
  13. শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (১৯ জন)
  14. বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (৩৭ জন)
  15. কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (১৫ জন)
  16. এম.আই.এস.টি বিশ্ববিদ্যালয় (০৬ জন)
  17. খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (১১ জন)
  18. পটুয়াখালী বিঃ ও প্রঃ বিশ্ববিদ্যালয় (০৯ জন)
  19. চট্রগ্রাম ভেটেনারী বিশ্ববিদ্যালয় (০৮ জন)
  20. বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (১১ জন)
  21. জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় (৩১ জন)
  22. মাওঃ ভাষানী বিঃ ও প্রঃ বিশ্ববিদ্যালয় (৩৬ জন)
  23. সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (২২ জন)
  24. নোয়াখালী বিঃ ও প্রঃ বিশ্ববিদ্যালয় (১৩ জন)
  25. বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (০৯ জন)
  26. ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় (১০ জন)
  27. মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং (০৩ জন)
  28. অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় (১২ জন)